মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

সেবার তালিকা

 

প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে এলজিইডি গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নে কার্যক্রম বাস্তবায়ন করলেও পরবর্তীতে এর কাজের পরিধি ব্যাপক বিস্তৃতি লাভ করে। এলজিইডি স্থানীয় পর্যায়ে অবকাঠামোগত সুবিধা সৃষ্টির মাধ্যমে দেশে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে তিনটি সেক্টরে কাজ করে থাকে; এগুলো হচ্ছে-পল্লি উন্নয়ন, ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়ন ও নগর উন্নয়ন। একইসঙ্গে, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহকে কারিগরি সহায়তা প্রদান করা হয়। এলজিইডির সার্বিক কর্মকাণ্ড দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও দারিদ্র্য বিমোচনে উল্লেখ্যযোগ্য ভূমিকা রাখছে।

 

পল্লি উন্নয়ন

fun1fun2

কৃষি নির্ভর আমাদের দেশের অর্থনীতিকে গতিশীল রাখতে পল্লি অঞ্চলের সড়ক যোগাযোগ নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা অপরিহার্য। উৎপাদিত কৃষি ও অকৃষি পণ্য পরিবহন ও এর সুষ্ঠু বিপণনে গ্রামীণ সড়ক ও সড়ক অবকাঠামো নির্মাণ করছে এলজিইডি। এলজিইডির রয়েছে দেশব্যাপী বিস্তৃত সড়ক নেটওয়ার্ক। এ বিশাল সড়ক নেটওয়ার্ক সার্বক্ষণিক চলাচলের উপযোগী রাখতে নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণের কাজ পরিচালনা করা হচ্ছে। পল্লি সড়ক কেবল সড়ক নয় গ্রামীণ অর্থনীতি, জীবনমান উন্নয়ন ও দারিদ্র্যমুক্তির সোপানও বটে। পল্লি সড়ক দেশের আর্থ-সামাজিক সূচকে বিশেষত শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও জেন্ডার সমতার অগ্রগতিতে বিশেষ অবদান রাখছে।

 

পল্লি অবকাঠামো উন্নয়নে এলজিইডি আজ জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত বিশ্বমানের প্রকৌশল সংস্থা। বিশ্বব্যাংকের ২০১৬ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে বাংলাদেশের পল্লির প্রত্যন্ত অঞ্চলের বেশিরভাগ জনগণ নিজ গ্রাম থেকে সর্বোচ্চ দুই কিলোমিটারের মধ্যে পাকা সড়ক ব্যবহারের সুবিধা পায়, যে সড়ক দিয়ে সহজেই মহাসড়কে উঠতে পারে। বিশ্বব্যাংকের সমীক্ষায় এ অর্জনকে উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য এক দৃষ্টান্ত হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

 

গ্রামীণ অর্থনীতি ও ব্যবসা বাণিজ্যকে গতিশীল করতে উন্নয়ন করা হচ্ছে গ্রোথ সেন্টার ও গ্রামীণ হাট-বাজার। কৃষক সহজেই উৎপাদিত পণ্য বাজারে নিতে পারছে এবং ফসলের ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন। এতে করে জনগণের আয় বাড়ছে এবং কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে, যা দারিদ্র্য বিমোচনে সহায়ক ভূমিকা রাখছে।

 

এলজিইডি দেশব্যাপী উপজেলা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ/সম্প্রসারণ এবং ইউনিয়ন পরিষদ ভবন নির্মাণের কাজও বাস্তবায়ন করছে। এতে করে স্থানীয় জনগণ একই ছাদের নিচে সহজেই সকল সেবা গ্রহণ করতে পারছেন। এলজিইডি নির্মিত পল্লি অবকাঠামো বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে সামিল হওয়ার ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা রাখছে।

 

বাংলাদেশের রয়েছে এক বিস্তৃত উপকূলীয় এলাকা। এসব এলাকার জনজীবন সামুদ্রিক ঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের দ্বারা প্রভাবিত। প্রাকৃতিক দুর্যোগের হাত থেকে উপকূলীয় এলাকার মানুষের জান-মাল সুরক্ষার জন্য এলজিইডি উপকূলীয় এলাকায় বহুমুখী দুর্যোগ আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করে থাকে। এসব সাইক্লোন শেল্টার এলাকার শিক্ষা প্রসারে প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবে ব্যবহৃত হয়। সাধারণ মানুষ যাতে দুর্যোগকালীন সহজেই আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে পারে সেজন্য সংযোগ সড়কও নির্মাণ করা হয়ে থাকে। গবাদি পশুর মত সম্পদও দুযোর্গকালীন এসব আশ্রয়কেন্দ্রে রাখার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

 

নগর উন্নয়ন

 

বাংলাদেশের গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর এক বিশাল অংশ এখন নগরমুখী। দ্রুত নগরায়নের ফলে জাতীয় উন্নয়নে শহর ও নগরের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে এবং বহুমুখী চাহিদার ব্যাপ্তি বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে নগর জনগোষ্ঠী দেশের মোট জনসংখ্যার শতকরা ২৮ ভাগ হলেও জাতীয় উৎপাদনের নগর ও শহরের অবদান শতকরা ৬০ ভাগের বেশি। অপরিকল্পিত নগরায়ন সামাজিক ও প্রাকৃতিক পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে। বর্ধিত জনগোষ্ঠীর জন্য আবাসন, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, শিক্ষা, চিকিৎসা, যোগাযোগ সুবিধা ইত্যাদি পরিসেবা নিশ্চিত করা একটি বড় চ্যালেঞ্জ। এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় এলজিইডি পৌরসভা ও সিটি কর্পোরেশনে বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে নগর পরিসেবা বৃদ্ধিতে সহযোগিতা প্রদান করছে। শহর এলাকার ভৌত অবকাঠামো উন্নয়নের পাশাপাশি পরিকল্পিত নগরায়নের জন্য পৌরসভার মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়ন, পরিচালন ব্যবস্থার উন্নয়ন ও দক্ষতা বৃদ্ধি ইত্যাদি কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে।

fun6fun8

 


ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়ন

 

fun9fun10

বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ। একইসঙ্গে, এ দেশ শত নদীর দেশ। কৃষি উৎপাদনে পানির ব্যবহার অপরিহার্য। ভূ-পৃষ্ঠের পানি ব্যবহার করে কৃষি উৎপাদন বাড়াতে এলজিইডি গত শতাব্দির আশির দশক থেকেই বিভিন্ন পল্লী উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ স্কীম বাস্তবায়ন শুরু করে। পরবর্তী সময়ে নব্বইয়ের দশকের মাঝামাঝি সময়ে প্রথম ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এরপর ১৯৯৯ সালে প্রণীত জাতীয় পানি নীতি (এনডাব্লিউপি) ও ২০০১ সালের জাতীয় পানি ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনা (এনডাব্লিউএমপি) এর আলোকে ১০০০ হেক্টর পর্যন্ত কমান্ড এলাকায় অংশীজনের অংশগ্রহণে সারাদেশে ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করছে এলজিইডি।

 

ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে সেচ কার্য ও পরিচালনা, মৎস্য উৎপাদন এবং আগাম বন্যার হাত থেকে ফসল রক্ষায় বাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছে। হাওড় অঞ্চলে আগাম বন্যার হাত থেকে পাকা ফসল রক্ষায় কিল্লা নির্মাণ করা হচ্ছে।

 

দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ স্থানীয় জনসাধারণকে সম্পৃক্ত করে ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ প্রকল্প বাস্তবায়ন সরকারের দারিদ্র্য হ্রাসকরণ কর্মসূচিকে ত্বরান্বিত করছে।

fun11

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter